সামুদ্রিক পরিবেশ দূষণের ফলে লাইভস্টক ক্যারিয়ার জাহাজকে ২ বৎসরের নিষেধাজ্ঞা জারি অস্ট্রেলিয়ার

প্রকাশিত: ১২:২৪ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৩, ২০২১
লাইট হাউজ ফাইল ফটো

মেরিটাইম ডেস্ক :  অস্ট্রেলিয়ার মেরিটাইম কর্তৃপক্ষ অস্ট্রেলিয়ার সমু্দ্র সীমার মধ্যে লাইভস্টক জাহাজটির কাঠামতে একটি ছিদ্র খুজে পায় এবং দু’বছরের জন্য প্রাণিসম্পদ বাহন বার্কলি পার্ল কে তার সমু্দ্র সীমা থেকে নিষিদ্ধ করে।

২০২০ সালের ৩ নভেম্বর মার্শাল দ্বীপপুঞ্জ পতাকাবাহী লাইভস্টক বার্কলি পার্ল জাহাজটি প্রাথমিকভাবে অস্ট্রেলিয়ার উত্তরাঞ্চলীয় জলের মধ্য দিয়ে লক্ষণীয়ভাবে কাত হয়ে ভ্রমণ করতে গিয়েছিল। এ সময় জাহাজটিতে কোনও পশুসম্পদ ছিল না।

জাহাজটি সামুদ্র নাবিকদের জন্য দূষণ ও সুরক্ষার সম্ভাব্য হুমকির বিষয়টি নির্ধারণ করে বলে, অস্ট্রেলিয়ান মেরিটাইম সেফটি অথরিটি (এএমএসএ) জাহাজটি জেরাল্ডটনের নিকটতম নিরাপদ বন্দর, যেখানে এটি নিরাপদে পৌঁছেছে নির্দেশ দেওয়ার একটি হস্তক্ষেপ আদেশ জারি করে।

গত দুই মাস ধরে, এএমএসএ শিপ ইন্সপেক্টররা জাহাজের মালিক এবং অপারেটরদের সাথে একটি উপযুক্ত মেরামতের সমাধান বিকাশের জন্য কাজ করেছিল। যার ফলে লাইভস্টক বার্কলি পার্ল জাহাজটিকে অর্ধ-নিমজ্জনযোগ্য ভারী লিফট জাহাজ এমভি ফ্যালকন দ্বারা অস্ট্রেলিয়ান জলের বাহিরে ছেড়ে দিয়ে যায়। বার্কলি পার্ল ৭ই জানুয়ারি ভারী লিফট জাহাজটিতে লোড করা হয় বলে জানা যায়।

ডিপার্চার হওয়ার আগে, বার্কলি পার্ল নেভিগেশন আইন ২০১২ এর অধীনে অ্যাক্সেসের নির্দেশে লাইভস্টক জাহাজটিকে কার্যকরভাবে ২৪ মাস অস্ট্রেলিয়া বন্দরে প্রবেশ বা ব্যবহার নিষেধাজ্ঞা নোটিশ জারি করে ।

এএমএসএর জেনারেল ম্যানেজার অপারেশনস, অ্যালান শোয়ার্জ জানায় “এটি এএমএএস এর একটি গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত।” আর এই প্রথম এত দীর্ঘ সময়ের জন্য অস্ট্রেলিয়ান বন্দর থেকে কোন জাহাজকে নিষিদ্ধ করা হয়েছে এবং এটি অবশ্যই জাহাজটির বাণিজ্যিক পরিচালনগুলিকে প্রভাবিত করবে।

তিনি বলেন, “বার্কলি পার্লের মালিক এবং অপারেটররা জাহাজের রক্ষণাবেক্ষণে অবহেলা করে, এতে সামুদ্রিক নাবিকদের জীবনকে ঝুঁকির মধ্যে ফেলে এবং অস্ট্রেলিয়ার সামুদ্রিক পরিবেশের জন্য তাৎক্ষণিক হুমকি সৃষ্টি করে।

২০২০ সালের সেপ্টেম্বরের শেষের দিকে জাপানের উপকূলে ঝড়ের সময় পনামা পতাকাবাহী গালফ লাইভস্টক ১ নামের একটি প্রাণি বহনকারী জাহাজ ডুবে যাওয়ার মাত্র কয়েক মাস পরে বার্কলি পার্লের ঘটনাটি ঘটে। ঐ দূর্ঘটনায় মাত্র ২ জন বেঁচে গিয়েছিল আর বাকি ৪১ জন নাবিক সদস্য সহ প্রায় ৬,০০০ গবাদি প্রাণ হারিয়েছিল। ঐ দুর্ঘটনাটি নিউজিল্যান্ডের কর্তৃপক্ষকে প্রাণিসম্পদ ক্যারিয়ার শিপিংয়ের উপর চাপ দেওয়ার জন্য উৎসাহিত করে। যার মধ্যে সরাসরি রফতানি স্থগিত করা হয়। কারণ শিপিং সংস্থাগুলি নতুন সুরক্ষা ব্যবস্থা গ্রহণ করেছিল এবং বাণিজ্যে পর্যালোচনা মুলতুবি রেখেছিল।